Breaking News

মইন আলিকে ‘জঙ্গি’ অপবাদ দিলেন তসলিমা

তসলিমা নাসরিনের ইসলাম-বিদ্বেষের কথা কারও অজানা নয়। ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের বিরুদ্ধে সবসময়ই সরব ভূমিকায় দেখা যায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে নির্বাসিত এই লেখিকাকে। এবার ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার মঈন আলিকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করে তোপের মুখে পড়লেন তিনি।মঈন এখন আইপিএল খেলতে ভারতে আছেন। আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে এবার মাঠ মাতাবেন ইংলিশ এই অলরাউন্ডার। ধর্মভিরু এই ক্রিকেটার কখনোই অ্যালকোহল জাতীয় পানীয়ের প্রচারণায় নিজেকে জড়াতে চান না। তাই জার্সিতে স্পন্সর হিসেবে দলের সবাই ‘মদে’র ব্র্যান্ডের লোগো ব্যবহার করলেও মঈন অনুরোধ করে নিজের জার্সি থেকে লোগো সরিয়ে নেন।

তিনি বলেছেন, ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত না থাকলে নাকি, সিরিয়ায় গিয়ে এই তারকা ক্রিকেটার জঙ্গি সংগঠনে যুক্ত হতেন। তাঁর এ হেন মন্তব্যের জেরে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে। তসলিমা টুইটে লিখেছেন, ‘মইন আলি যদি ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত না থাকতেন, তবে সিরিয়ায় গিয়ে আইএসআইএস-এ যোগ দিতেন।’ তসলিমার এই কুৎসিত মন্তব্য কেউই ভাল ভাবে নিচ্ছেন না। রীতিমতো ট্রোলডের শিকার হয়েছেন বাংলাদেশের লেখিকা। প্রত্যেকে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। ইংল্যান্ডের মইন আলির সতীর্থ জোফ্রে আর্চার তো তসলিমাকে এক হাত নিয়েছেন। তিনি পাল্টা টুইট করে লিখেছেন, ‘আপনি কি ঠিক আছেন? আমার মনে হয় না আপনি ঠির আছেন’।

দু’দিন আগে মইন আলি তাঁর জার্সি থেকে একটি অ্যালকোহল সংস্থার লোগো তুলে নিতে অনুরোধ জানিয়েছিলেন চেন্নাই সুপার কিংস কর্তৃপক্ষকে। যেহেতু ইসলামিক ধর্মে অ্যালকোহলের প্রচার করা বারণ, সে কারণেই তিনি এই আর্জি জানিয়েছিলেন। তাঁর ভাবাবেগকে সম্মান জানাতে চেন্নাই কর্তৃপক্ষ মইন আলির জার্সি থেকে নির্দিষ্ট ওই সংস্থার লোগো তুলেও নেয়।

বিষয়টি সেখানেই মিটে গিয়েছিল। তসলিমা নাসরিন হঠাৎ করেই সেখানে খোঁচা দিতে গিয়ে উল্টে নিজেই ট্রোলডের শিকার হলেন। টুইটারে একজন তাঁকে লিখেছেন, ‘তসলিমা নাসরিনের নামটি যদি মুসলিম না হত, তবে তিনি নিশ্চিত ভাবে আরএসএসে যোগ দিতেন।’ কেউ বিদ্রুপের ছলে তাঁর সমালোচনা করছেন, কেউ আবার ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছেন।

About admin

Check Also

অনলাইনে কেনাকাটা-ঃ প্রতারণার শিকার জাতীয় দলের ক্রিকেটার

অনলাইনে কেনাকাটা করতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হয়েছেন বাংলাদেশ নারী দলের ক্রিকেটার ফাহিমা খাতুন। ‘অ্যাকটিভ ফ্যাশন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *