Breaking News

সেই স্বর্ণযুগের ওয়েস্ট ইন্ডিজকে কখনোই হয়তো দেখতে পাব না

বর্তমানে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সবশেষ ২০১৬ সালের আসরে শিরোপা জিতেছিল তারা। এর আগে ২০১২ সালের আসরেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ক্যারিবীয়রা। কিন্তু ওয়ানডে ও টেস্ট ফরম্যাটে রীতিমতো নাজুক অবস্থা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের। অথচ ক্রিকেটের কুলীন ফরম্যাট টেস্ট ক্রিকেটের একসময়কার রাজা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এছাড়া ওয়ানডে ক্রিকেটেও প্রথম দুই বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছিল তারা। আশির দশকে প্রায় দশ বছর ধরে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে টেস্ট জিততে পারেনি কোনো দল।

সেই ওয়েস্ট ইন্ডিজই এখন পুরোপুরি টি-টোয়েন্টি নির্ভর দল। আবার এই কুড়ি ওভারের ফরম্যাটেও এখন আইসিসি র‍্যাংকিং অনুযায়ী বিশ্বের দশম সেরা দল ক্যারিবীয়রা। অর্থাৎ তিন ফরম্যাটের কোনোটিতেই এখন শক্তিশালী দল হিসেবে বিবেচিত হয় না ওয়েস্ট ইন্ডিজ।স্পোর্টস লাইভকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্বর্ণযুগের কথা স্মরণ করে অনেক কথা বলেন কার্টলি অ্যামব্রোস।

অ্যামব্রোসের সোজাসাপ্টা মন্তব্য, এখন আমরা যে সব তরুণকে দেখছি দেশের হয়ে খেলছে, তারা জানেই না ওয়েস্ট ইন্ডিজের মানুষের কাছে ক্রিকেটের জায়গা কোথায়। নিজেদের দেশে তো বটেই, বিদেশে বসবাসকারী ক্যারিবিয়ানদের কথাও উঠে এসেছে তাঁর বক্তব্যে। বলেছেন, দেশে এং বিদেশে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মানুষদের একসূত্রে গেঁথে রাখার মাধ্যম ক্রিকেট। আমি জানি না, বর্তমান প্রজন্ম কতটা সে সম্পর্কে ওয়াকিবহাল।

ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম দুটি বিশ্বকাপ জেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তিরাশিতে ক্লাইভ লয়েডের বিশ্বজয়ী দলের জয়যাত্রা থামিয়ে দেয় কপিল দেবের ভারত। তার পরেও বিশ্ব ক্রিকেটকে শাসন করেছেন ভিভ রিচার্ডস, ডেসমন্ড হেইন্স, রিচি রিচার্ডসন, ব্রায়ান লারা এবং তাঁদের ত্রাস সৃষ্টিকারী ফাস্ট বোলারেরা। কিন্তু সেই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের পরম্পরা এখন আর নেই। সেই ১৯৭৯-তে বিশ্বকাপ জয়ের পরে ২০১২ এবং ২০১৬-তে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতেছিল। কিন্তু পঞ্চাশ ওভারের বিশ্বকাপ আর জিততে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

অ্যামব্রোস বলছেন, আমি বর্তমান প্রজন্মের প্রতি অশ্রদ্ধা দেখাচ্ছি না। এখনকার দলে দু-তিন জন আছে, যারা সত্যিই দক্ষ। সেরা হয়ে উঠতে পারে। কিন্তু আমাদের একটা জিনিস বুঝতে হবে। সেই স্বর্ণযুগের ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আর আমরা কখনোই হয়তো আর দেখতে পাব না।’

যাঁর নিখুঁত পেস বোলিং ঘুম কেড়ে নিত বিশ্বের সব বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানের, সেই অ্যামব্রোস মনে করেন, আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে হয়তো উন্নতি করতে পারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল। কিন্তু আশি বা নব্বইয়ের দশকে যেভাবে বিশ্ব ক্রিকেটকে শাসন করত, তা আর পারবে না। কিছুটা কষ্ট নিয়েই বললেন, আমরা যখন বিশ্বের সেরা দল ছিলাম, যেকোোও জায়গায় গিয়ে শাসন করে দেখিয়েছি। গর্ব করে বলতে পারতাম সবাই যে, আমরা কত ভালো দল। বিশ্বের সেরা দল। সেই গৌরবের অতীত ফিরিয়ে আনা খুবই কঠিন।

About admin

Check Also

১৫ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে ভাল পারফরম্যান্স করছে মুশফিক

আইসিসির মে মাসের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম। মহিলাদের বিভাগে এই সম্মান পেলেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *