অশ্বিনকে সতর্ক করল আম্পায়ার, ক্ষোভ প্রকাশ করলেন গাভাস্কার

রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে সতর্ক করায় আম্পায়ারদের উপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনীল গাভাস্কার। আম্পায়ারদের সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছেন সাবেক এই ভারতীয় অধিনায়ক। কানপুর টেস্টের তৃতীয় দিনে ব্যাটারকে বাধা দেয়ার অভিযোগ আনা হয় অশ্বিনের বিপক্ষে। বল করার পর অপর প্রান্তের ব্যাটারের সামনে চলে আসেন তিনি। আর এতেই আম্পায়ারের কাছে অভিযোগ করেন কিউই ব্যাটাররা। এছাড়া এই ইনিংসে অফস্পিনের সাথে আরও অনেক ধরনের বৈচিত্র্যও প্রয়োগ করেছেন অশ্বিন।

ক্যারম বল, গুগলি, ফিঙ্গার স্পিন, রিস্ট স্পিনের সাথে স্ট্যাম্প ও আম্পায়ারের মাঝের জায়গা দিয়ে রান আপ নিয়ে বোলিং করেছেন ভারতের এই তারকা স্পিনার। তবে অশ্বিনকে আম্পায়ার নিতিন মেননের সতর্ক করাটা ভালোভাবে নেননি গাভাস্কার। এর সাথে, এই বিষয়ে ক্রিকেটের আইন নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন এই কিংবদন্তি ক্রিকেটার। তিনি বলেন, রান নিতে সমস্যা হলে ব্যাটাররা জায়গা নিয়ে দাঁড়াতে পারতেন। নন-স্ট্রাইকে থাকা ব্যাটার কোথায় দাঁড়াবে সেটি ঠিক করার অধিকার বোলারের রয়েছে, এমনটাই মনে করেন সুনীল গাভাস্কার।

গাভাস্কার বলেন, ‘রাহানে বলছিল অশ্বিন তো ক্রিজের মধ্যে ‘ডেঞ্জার জোনে’ বা বিপজ্জনক জায়গায় যায়নি। তাহলে সমস্যা কোথায়। আমার মনে হয় আম্পায়াররা পুরো ঘটনা বুঝতে পারেননি। কেন সতর্ক করা হল? এ ক্ষেত্রে শাস্তি দেওয়ার জন্য কি ক্রিকেটে কোনও লিখিত আইন রয়েছে? যদি বল ব্যাটারের হেলমেটে লাগত তাহলে শাস্তির প্রসঙ্গ আসত। কিন্তু অশ্বিন সে রকমের কিছু করেনি।’

গাভাস্কারের ভাষ্য, ‘আম্পায়াররা বলেছে ব্যাটারের রান নিতে সমস্যা হচ্ছিল। তা হলে সে অন্য দিকে দাঁড়াতে পারত। অপর প্রান্তে থাকা ব্যাটার কোথায় দাঁড়াবে সেটা বোলারের ঠিক করার অধিকার রয়েছে।’

কনপুর টেস্টের তৃতীয় দিন অশ্বিনকে দেখা গেছে অপর প্রান্তের ব্যাটারের দিকে তিনি এগিয়ে যাচ্ছেন। এর ফলে তিন রান নিতে গেলে ব্যাটসম্যানকে সমস্যায় পড়তে হতো। একবার আম্পায়ার সতর্ক করার পরও একই ঘটনা পুনরাবৃত্তি হলে এরপর অধিনায়ককেও ডেকে সতর্ক করে দেন আম্পায়ার।

About রাসেল আহমেদ

Check Also

সকালে ঘুম থেকে উঠেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বার্তা পেয়েছি-: গেইল

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে ক্যারিবীয় ব্যাটিং-দানব ক্রিস গেইলকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *