পেসাররা যদি আরেকটু ভালো বল করত, আরও বেশি খুশি হতাম

পঞ্চমদিনের এক ঘণ্টা বাকি থাকতে চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র। শ্রীলংকা প্রথমদিন থেকেই আঁচ করতে পেরেছিল যে, ম্যাচ ড্র হবে। সেটা করতে পেরে তারা খুশি। কিন্তু প্রথম টেস্ট হওয়ায় তিনি খুশি কি না, এ নিয়ে কিছু বললেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। জানালেন, চট্টগ্রামের উইকেট এমনই হয়। ২৩ মে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে দ্বিতীয় শেষ টেস্ট।

বৃহস্পতিবার ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘চট্টগ্রামের উইকেট সব সময় এরকই থাকে। এর আগেও তো এমন উইকেটে এই সময়ে স্পিনাররা কোনো সহায়তা পায়নি। এবার কিছুটা সাহায্য পেয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘এমন উইকেটে টিকে থাকা যায়, কিন্তু অস্থির হলে বিপদ। লিটন ওই সময়ে আউট না হলে হয়তো আমরা ভালো একটা সুযোগ নিতে পারতাম। কিছু রান বাড়াতে পারতাম।’ শ্রীলংকার পেসাররা ভালো করলেও বাংলাদেশের পেসাররা মোটেই ভালো করতে পারেননি। মুমিনুলের আফসোস সেখানেই। পেসাররা ভালো করলে মুমিনুলও খুশি হতেন। তিনি বলেন, ‘দলীয়ভাবে আমরা সবাই ভালো খেলতে পেরেছি, এটাই সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি। এটাই দরকার। সবাই যখন ভালো খেলি, তখন দলের উপকার হয়। তবে পেসাররা যদি আরেকটু ভালো বল করতে পারত…। তাদের ওপর প্রত্যাশা বেড়েছে, তারা ভালো করলে আরও খুশি হতে পারতাম।’

ঢাকায় কেমন উইকেট হবে সেটা দুদলই অনুমান করতে পারছে। মুমিনুল বলেন, ‘ঢাকায় কেমন উইকেট হয় সেটা আমরা জানি। সেখানে টার্ন বেশি থাকবে, বল বেশি জোরে আসবে। ভেতরে ঢুকলে কীভাবে খেলতে হবে সেটার জন্য মানসিকভাবে আমরা প্রস্তুত।’ লংকান মিডল অর্ডার ব্যাটার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা বলেন, ‘ঢাকার উইকেটে স্পিনারদের জন্য অনেক কিছু থাকে। আমরা যদি প্রথমে ব্যাট করতে পারি, তাহলে ২৭৫-৩০০ করার চেষ্টা করব। স্বাগতিকদের ১৫০ রানের মধ্যে অলআউট করার চেষ্টা করব। তাহলে আমাদের জয়ের সুযোগ তৈরি হবে।’

About রাসেল আহমেদ

Check Also

ফর্ম নেই, অবসর নিচ্ছেন মরগ্যান

একে তো ফর্ম নেই, তার ওপর ফিটনেসেও ঘাটতি। সবমিলিয়ে জাতীয় দলে জায়গা ধরে রাখাই মুশকিল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *