সিরিজ হেরে যাকে দোষ দিচ্ছেন সুজন

জিম্বাবুয়ে সফরে যাওয়ার আগে তরুণ দলটি নিয়ে বেশ আশাবাদী ছিলেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। দলটিকে গাইড করার জন্য তিনি নিজে গেলেন হারারেতে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হলো কী? জিম্বাবুয়ের কাছে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারলো বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টিতে এই প্রথম জিম্বাবুয়ের কাছে টাইগারদের সিরিজ পরাজয়।

স্বাভাবিকভাবেই ভক্ত থেকে শুরু করে দলের ক্রিকেটার এবং কর্মকর্তাদের মধ্যেও একটা হতাশা ভর করেছে। সেই হতাশাটা প্রকাশ পেয়েছে টিম ডিরেক্টরের মুখ দিয়ে। কোনোকিছু রাখঢাক না করেই তিনি বলে দিলেন, ‘আমি খুব হতাশ।’

প্রতিটি ম্যাচ এবং সিরিজ শেষে একটা কমন কথা বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক এবং কোচদের মুখ থেকে শোনা যায়, ভুল থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। কিংবা যে কোনো ম্যাচ অথবা সিরিজ শুরুর আগেও ঠিক এমন কথা শোনা যায় তাদের মুখ থেকে। বলে আগের ম্যাচে যে ভুলগুলো করেছি, সেখান থেকে যেন শিক্ষা নিয়ে পরের ম্যাচে কাজে লাগাতে পারি।

ওয়ানডে মর্যাদা ১৯৯৯ সালে, টেস্ট মর্যাদা ২০০০ সালে পেয়েছে বাংলাদেশ। এরপর থেকে গত ২২-২৩ বছরে নিয়মিতই এমন কথা শোনা যায়। কিন্তু সেই শিক্ষা নেয়াটা আর হয়ে ওঠে না বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের। কিংবা শিক্ষা নিলেও সেটা পরের ম্যাচে আর কাজে লাগাতে পারে না। আগের মতই অবস্থা কিংবা তার চেয়েও খারাপ অবস্থার প্রদর্শনী চলে।

টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন খুব হতাশাভরেই কথাটা বলে দিলেন এবার। জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ পরাজয়ের পর মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা বারবার বলি নিজেদের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে; কিন্তু আমরা কবে সে শিক্ষাটা নেব? আমি পুরোপুরি ক্রিকেটারদেরকেই দোষ দেব। তাদের প্রয়োগ সম্পূর্ণ ভুল ছিল।’

About রাসেল আহমেদ

Check Also

আরব আমিরাতে এমন খারাপ দিন দেখেনি রশিদ খান

এবারের এশিয়া কাপের আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ১৯টি। কিন্তু এমন দিন দেখতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *